এর চাইতে অভিশাপের বিষয় আর কিছু হতে পারে না : মওদুদ !!

165

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ বলেছেন, ‘দেশের মানুষ গণতান্ত্রিক চর্চা দেখতে চায়, ভোটের অধিকার ফিরে পেতে চায়। যতদিন পর্যন্ত সেটা না হবে ততদিন পর্যন্ত এই উন্নয়নশীলতা একটি তকমা ছাড়া আর কিছুই না।’

মওদুদ বলেন, ‘এতো দিন আমরা বলে আসছি এই সরকার স্বৈরতান্ত্রিক সরকার, ফ্যাসিবাদী সরকার। এতো দিন আমরা বলেছি এদেশে গণতন্ত্র নাই, বিচার বিভাগের স্বাধীন নাই, মানুষের মৌলিক অধিকার নাই। আজকে উন্নয়নশীলতার কথা বলে সরকার উৎসব করছে। আর দেখেন পৃথিবীর পাঁচটি স্বৈরতান্ত্রিক সরকারের মধ্যে বাংলাদেশ নিচ থেকে পাঁচে। এটা আমার কথা নয়, জামার্নীর একটি আন্তর্জাতিক গবেষনা সংস্থার প্রতিবেদনে এই কথা বলা হয়েছে। তারা বলছে, বাংলাদেশে গণতন্ত্র নাই। সারা বিশ্বে আজকে স্বীকৃত বাংলাদেশে একটি স্বৈরতান্ত্রিক সরকার রয়েছে। এর চাইতে অভিশাপের বিষয় আর কিছু হতে পারে না।’

আজ শনিবার সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে খালেদা জিয়া মুক্তি পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় মওদুদ এসব কথা বলেন।

বিএনপির জ্যেষ্ঠ এই নেতা বলেন, ‘এরা (সরকার) মানুষ বিভ্রান্ত করার জন্য, মানুষকে অন্যপথে নিয়ে যাওয়ার জন্য, আসল ইস্যুগুলো এড়িয়ে যাওয়ার জন্য এই উন্নয়নশীল স্বীকৃতির কথা বলছে।’
মওদুদ অভিযোগ করে বলেন, ‘যে দেশে আইনের শাসন নেই, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নেই, সেখানে উন্নয়নশীলতার কথা বলা জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করা ছাড়া আর কিছু না। আওয়ামী লীগের মদদপুষ্ঠ কিছু মানুষ খুব বড় লোক হয়ে গেছে, অসম্ভব টাকার মালিক হয়ে গেছে। সামান্য একটি অংশ ও তাদের পরিবার আজকে হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাঁচার করে নিয়ে যাচ্ছে।’

দলটির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য আরও বলেন, ‘গরীব গরীবই থেকে গেছে। বেকারত্ম, দুর্নীতি, দলীয় শাসন যেখানে বাংলাদেশের সমাজ ব্যবস্থাকে জর্জরিত করেছে সেখানে উন্নয়নশীলতার কথার কোনো মূল্য নেই, সাধারণ মানুষ এটা বুঝে না।’

সংগঠনের সভাপতি জেডএমআই মোস্তফা আলীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আহমেদ আজম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য অধ্যাপক সুকোমল বড়ুয়া, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, নির্বাহী কমিটির সদস্য রফিক শিকদার প্রমুখ।

সূত্রঃ আমাদের সময়