Home / Bangladesh / বিরোধ না মিটলেও পার্কিং ফি নিচ্ছে ডিএসসিসি…

বিরোধ না মিটলেও পার্কিং ফি নিচ্ছে ডিএসসিসি…

বুড়িগঙ্গা সেতুর বাবুবাজার অংশের নিচের জায়গার মালিকানা নিয়ে সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) দ্বন্দ্ব এখনো কাটেনি। কিন্তু এরই মধ্যে সেতুর নিচে গাড়ি পার্কিংয়ের জায়গা নির্ধারণ করে ফি আদায় করছে ডিএসসিসি। এদিকে পার্কিং ফি বাবদ ১০ গুণ পর্যন্ত বেশি টাকা আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ডিএসসিসির সম্পত্তি বিভাগ সূত্র জানায়, বাবুবাজার সেতুর নিচে পৃথক চারটি স্থান গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য ইজারা দিতে দরপত্র আহ্বানের প্রস্তুতি নিচ্ছে ডিএসসিসি। ইজারার দর নির্ধারণের জন্য ‘খাস আদায় কমিটি’ নামের চার সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির উদ্যোগে পরীক্ষামূলকভাবে ওই চারটি স্থানে পার্ক করা গাড়ি থেকে ফি আদায় করে ইজারার দর নির্ধারণ করা হবে। এরপর দরপত্র আহ্বান করা হবে।

ডিএসসিসির সম্পত্তি বিভাগ সূত্র জানায়, নিয়ম অনুযায়ী, খাস আদায় কমিটির সদস্যদেরই সরাসরি ফি আদায় করার কথা। কিন্তু ডিএসসিসির ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বিল্লাল শাহ ফি আদায়ের দায়িত্ব চান। পরে তাঁকে অঘোষিতভাবে খাস আদায়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়। সূত্র জানায়, মোটরসাইকেলের পার্কিংয়ের জন্য ঘণ্টায় ৫ টাকা এবং পিকআপ বা ব্যক্তিগত গাড়ির জন্য ঘণ্টায় ১৫ টাকা ফি নির্ধারণ করা হয়।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ১৫-২০ দিন ধরে বাবুবাজার সেতুর নিচে পার্ক করা গাড়ি থেকে ফি আদায় শুরু করা হয়। মাঠপর্যায়ে সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করছেন কাউন্সিলর বিল্লাল শাহের ঘনিষ্ঠ লোক হিসেবে পরিচিত এক ব্যক্তি।

গত মঙ্গলবার দেখা যায়, আরমানিটোলা মাঠের দক্ষিণ-পূর্ব পাশ থেকে বুড়িগঙ্গা নদীর পাড় পর্যন্ত বাবুবাজার সেতুর নিচে পৃথক পাঁচটি স্থান পার্কিংয়ের জন্য নির্দিষ্ট করা। এসব স্থানে গাড়ি রাখলে ফি আদায় করা হচ্ছে। পার্কিং ফি আদায় করে রসিদ দেওয়া হচ্ছে। তবে রসিদে কোন গাড়ির জন্য কত ফি, তা লেখা নেই। ফি আদায়কারী ব্যক্তিরা রসিদে টাকার পরিমাণ লিখে দিচ্ছেন। দেখা গেছে, মোটরসাইকেল পার্কিং বাবদ প্রতি ঘণ্টায় ৫০ টাকা, ব্যক্তিগত গাড়ি থেকে ১০০ টাকা এবং পিকআপ ভ্যান থেকে ১৫০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে।

মনির হোসেন নামের এক ব্যক্তি বলেন, তিনি সেতুর নিচে মোটরসাইকেল পার্ক করেছিলেন। এক ঘণ্টা পার্কিংয়ের জন্য তাঁর কাছ থেকে আদায় করা হয়েছে ৫০ টাকা।

পার্কিং ফি আদায়কারী আল-আমিন বলেন, পার্কিং ফি আদায়ের জন্য ডিএসসিসি থেকে তাঁদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। প্রতিদিন তাঁরা নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা ডিএসসিসিতে জমা দেন।

আল-আমিন ডিএসসিসি-নির্ধারিত পার্কিং ফির তালিকা দেখাতে পারেননি।

ডিএসসিসির ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বিল্লাল শাহ বলেন, সিটি করপোরেশন তাঁকে পার্কিং ফি আদায়ের দায়িত্ব দিয়েছে। অতিরিক্ত টাকা আদায়ের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এ ব্যাপারে কিছু জানেন না বলে দাবি করেন।

জানতে চাইলে ডিএসসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, ‘খাস আদায় কমিটির লোক দিয়ে সার্বক্ষণিক পার্কিং ফি আদায় করা সম্ভব হয় না। কারণ, আমাদের জনবল কম। তাই আইনানুযায়ী জনবল নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত পার্কিং ফি আদায়ের অভিযোগটি খতিয়ে দেখব। এ ছাড়া দরপত্র চূড়ান্ত করা হলে এই অবস্থার পরিবর্তন ঘটবে।’

বুড়িগঙ্গা সেতুর বাবুবাজার অংশের নিচের জায়গার ব্যাপারে সম্প্রতি ডিএসসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা বরাবর চিঠি দিয়েছে সড়ক ও জনপথ বিভাগের সড়ক উপবিভাগ-২। উপবিভাগীয় প্রকৌশলী মোহাম্মদ আমিনুল এহসান স্বাক্ষরিত এই চিঠিতে বলা হয়, সেতুর নিচের জমিতে কে বা কারা ডিএসসিসির মাধ্যমে দরপত্র নিয়ে গণশৌচাগার ও গাড়ি পার্ক করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। অথচ এই সেতুটি গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্রীয় স্থাপনার (কেপিআই) অন্তর্ভুক্ত। তাই সেতুর উপরিভাগ ও স্থলভাগ রক্ষণাবেক্ষণসহ সব মালিকানা শুধু সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের জন্য সংরক্ষিত।

অন্যদিকে সেতুর নিচের জায়গার মালিকানার বিষয়ে কামরুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ঢাকা সিটি জরিপে সেতুর নিচের এই জায়গা রাস্তা হিসেবে ডিএসসিসির নামে রেকর্ড হয়েছে। তাই জনস্বার্থে সেতুর নিচের অব্যবহৃত জায়গা পার্কিংয়ের জন্য ইজারা দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তাঁরা। এতে সেতুর কোনো ক্ষতি হবে না।

Check Also

কুড়িয়ে পাওয়া টাকা মাইকিং করে ফেরত…

রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার লালদীঘি পীরপাল বিএম কলেজের অধ্যক্ষ আমিনুল কবীর ১০ হাজার টাকা সড়কে পেয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.